mous">
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৩৭ পূর্বাহ্ন

মুক্তারপুরে একই সঙ্গে দুইবোনের বিষপানে আত্নহত্যার চেষ্টা

তুষার আহাম্মেদ- সদর উপজেলার পশ্চিম মুক্তারপুরে জেসমিন আক্তার (১৮), তানিয়া আক্তার (১৪) নামের দুই বোন এক সঙ্গে বিষপান করে আত্নহত্যার চেষ্টা করেছেন বলে জানিয়েছেন স্বজনরা। গতকাল সোমবার দুপুর দেড় টার দিকে পশ্চিম মুক্তারপুরে ইকবাল মিয়ার বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, মেয়ে দুইটি সবজির জমিতে কিটনাশক হিসেবে ব্যবহৃত ইন্ডিল দু”জনে একই সময়ে পান করেন। এসময় তাদের বমি করতে থাকলে তাদের মা রাশিদা বেগম দ্রুত ছুটে আসেন। পরবর্তীতে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাদেরকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন স্বজনরা। জরুরি বিভাগে দায়িত্বরতরা দুইবোনের পেট থেকে ওয়াশ করে পান করা বিষ বের করে আসেন। বর্তমানে বিষ পান করে আতœহত্যার চেষ্টা করা দুই বোনই এখন মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।
জানাগেছে, নবাবগঞ্জ জেলার ধামুরহাট উপজেলা থেকে প্রায় ৯ বছর পূর্বে পিতা আতোয়ার হোসেন এবং মাতা রাশিদা বেগমের  জীবিকার সন্ধানে পশ্চিম মুক্তারপুর এলাকায় আসেন। এসময় তাদের দু”টি কন্যা সন্তানদেরকে সাথে করে নিয়ে আসেন। মাতা গৃহিনী কাজ করলেও পিতা ডাইনিং মিলে শ্রমিকের কাজ করেন। এই মেয়ে দু”টিও পিতামাতাকে সহযোগিতা করার জন্য কাষ্টিং মেইলে নারী শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। আতোয়ার হোসেন তার বড় মেয়েকে কিছুদিন আগে বিয়ে দিয়েছিলো কিন্তু তার মেয়ের সংসারে স্বামীর সাথে বনিবনা না হওয়ায় সেই বিবাহের সম্পর্কের বিচ্ছেদ ঘটনা হয়। পিতা এবং দুই মেয়েই শ্রমিক হিসেবে কারখানায় কাজ করেন। কিন্তু কি কারনে দু”জনে বিষ পান করেছে সেটা স্বজন এবং স্থানীয়রা কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছেনা।
সরেজমিনে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, দ্বিতীয় তলার মহিলা ওয়ার্ডে আলাদা আলাদা বেড়ে দুই বোনকে চিকিৎসাসেবা দেয়া হচ্ছে। এসময় জেসমিন আক্তার এবং তানিয়ার বাবা মা তাদের পায়ে বসে কান্নাকাটি করছেন। বিষ খাওয়ার কারন জানতে চেয়ে জেসমিনকে প্রশ্ন করা হলেও তিনি বলেন, এভাবেই মন চাইছে তাই ইন্ডিল খাইছি দুইবোনে। এ বেশি কিছু বলতে পারবোনা। একই প্রশ্ন তানিয়াকে করা হলেও সেই একই জবাব দেন। এসময় সেখানে উপস্থিত মা রাশিদা বেগমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি বাসায় ছিলাম ওরা কেন বিষ খাইলো এইডা বুঝতে পারছিনা। কারো সাথে কোন বিরোধ কিংবা বিষ খাবে এমন কিছু ঘটেনি। কিন্তু ওরা কেন বিষ খাইলো এটা ওরাও বলছে না আর আমরাও জানতে পারছিনা। তবে ওরা সুস্থ্য হলে হয়তো বিষ খাওয়ার মূল কারন জানতে পারবো। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত সন্ধ্যা ৭ টার সময় আতোয়ার হোসেন জানান, তাদের দুই মেয়ে এখন মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।
মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের দায়িত্বরত মেডিকেল অফিসার ডা. এম.এ.কালাম প্রধান বলেন, তারা দুইবোন ফসলি জমির সবজিতে ব্যবহৃত ইন্ডিল জাতীয় ঔষধ সেবন করেছেন। হাসপাতালে নিয়ে আসার পর তাদের পেটওয়াশ করে হাসপাতালে ভর্তি দেয়া হয়েছে। গুরুত্বসহকারে তাদের দুইবোনকে চিকিৎসাসেবা দেয়া হচ্ছে।



ফেজবুক পেইজে লাইক দিন